প্রশাসন

চিত্তরঞ্জনের চিরেকায় স্বাধীনতা দিবস

কাজল মিত্র

:- চিত্তরঞ্জন রেলইঞ্জিন কারখানা (চিরেকা)-য় প্রবল উৎসাহ ও উদ্দীপনা এবং ভারত সরকার প্রদত্ত কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ রোধের বিভিন্ন সতর্কতামূলক নির্দেশিকা পালনের সাথে আজ ৭৪ তম স্বাধীনতা দিবস উদযাপিত করা হয়। মহাপ্রবন্ধক শ্রী প্রভীন কুমার মিশ্র ওভাল ময়দানে অনুষ্ঠিত মূল অনুষ্ঠানে ত্রিবর্ণ-রঞ্জিত পতাকা উত্তোলন করেন এবং এরই সাথে জাতীয় সংগীতটি চিরেকার সাংস্কৃতিক সংগঠনের দ্বারা উপস্থাপন করা হয়। চিরেকা মহিলা কল্যাণ সংগঠনের অধ্যক্ষা শ্রীমতি সুনিতা মিশ্র সহ সংগঠনের অন্যান্য সদস্যবৃন্দ, চিরেকা’র বরিষ্ঠ আধিকারিকবৃন্দ, স্টাফ কাউন্সিলের সদস্যবৃন্দ এবং গণমাধ্যমের প্রতিনিধিরা সামাজিক দূরত্ব পালনের সাথে এই অনুষ্ঠানে উপস্হিত ছিলেন। মহাপ্রবন্ধক শ্রী প্রভীন কুমার মিশ্র আরপিএফ/আরপিএসএফ, অসামরিক প্রতিরক্ষা, সেন্ট জোন’স অ্যাম্বুলেন্স ব্রিগেড এবং ভারত স্কাউটস্ ও গাইডস্ স্বেচ্ছাসেবকদের কর্তৃক আয়োজিত প্যারেডের পরির্দশন করেন এবং তাদের অভিবাদন গ্রহণ করেন। আজ ৭৪ তম স্বাধীনতার শুভক্ষণে মহাপ্রবন্ধক চিরেকার ৭০ তম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে নির্মিত একটি তথ্যচিত্র এবং “ইঞ্জিন অফ চেঞ্জ ” নামক ডিজিটাল বইয়ের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।পরে মহাপ্রবন্ধক শ্রী প্রভীন কুমার মিশ্র চিরেকার করোনা যোদ্ধাদেরসম্মানিত করেন এবং তাদের সেবামূলক কাজের প্রশংসা করেন।
এই শুভ অনুষ্ঠানে মহাপ্রবন্ধক শ্রী প্রভীন কুমার মিশ্র স্বাধীনতা সংগ্রামীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শক্তির থেকে ভারতবর্ষকে স্বাধীন করার ক্ষেত্রে তাদের ভূমিকার কথা স্মরণ করেন। মাননীয় শ্রী প্রভীন কুমার মিশ্র চিরেকা’র সাম্প্রতিক সাফল্যের কথা তুলে ধরে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি-সমৄদ্ধ উন্নতমানের ইঞ্জিন উৎপাদনের পরিকল্পনার ওপর জোর দেন। চিরেকা চলতি বর্ষে ৩১ জুলাই পর্যন্ত ২৩৫১টি বাষ্পীয় রেল ইঞ্জিন, ৮৪২টি ডিজেল ইঞ্জিন এবং ৭২৭৪ টি ইলেকট্রিক ইঞ্জিন সফলতার সহিত উৎপাদন করে সর্বমোট ১০ হাজারের অধিক রেল ইঞ্জিন তৈরী করে ফেলেছে।তিনি উল্লেখ করেন যে চিরেকার কাজের প্রতি উত্সর্গীকৃত কর্মীবৃন্দ, সুপারভাইজার ও আধিকারিকদের অক্লান্ত প্রচেষ্টার সহায়তায় চিরেকা সফলতা সহিত বহু পথ অতিক্রম করে চলেছে।মহাপ্রবন্ধক শ্রী মিশ্র আরও উৎসাহের সাথে ব্যক্ত করেন যে আর্থিক বর্ষ ২০১৯-২০ এ পূর্বতন রেকর্ড গুলিকে অতিক্রম করে ৪৩১ টি ইলেকট্রিক ইঞ্জিন উৎপাদনের মাধ্যমে বিশ্বের বৃহত্তম ইলেকট্রিক রেল ইঞ্জিন উৎপাদকের শিরোপা নিজের নামে করে চিরেকা এক নতুন গৌরবময় অধ্যায়ের সূচনা করেছে।

মহাপ্রবন্ধক শ্রী প্রভীন কুমার মিশ্র বিশদ ভাবে বলেন যে চমকপ্রদ পারর্দশীতা শুধু মাএ ইঞ্জিন উৎপাদনের মধ্যে সীমিত নয়, বর্তমান মহামারী কোভিড-১৯ এর পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটেও চিরেকা জাতির স্বার্থে উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছে। লকডাউন এর কারণে ইঞ্জিন উৎপাদনের কাজ স্থগিত হলেও চিরেকার কর্মীদের উৎসাহে কোন ঘাটতি হয়নি বরং তারা এই পরিস্থিতিতেও ৯০টি আইসোলেশন বেড, মেডিকেল টেবিল, কর্মচারী ও তাদের পরিবারের জন্য ফেস মাক্স, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, রিমোট কন্ট্রোল ট্রলি, ব্যবস্থার সাথে যুক্ত কর্মীদের জন্য পি পি ই শ্যুট নির্মাণের মত প্রশংসনীয় কাজ করেছে।

আধুনিক প্রযুক্তিগত বিদ্যার বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে চিরেকার কর্মীরা সমান পারদর্শী। চলতি আর্থিক বর্ষে ৩১শে জুলাই পর্যন্ত কোভিড-১৯ এর বাধা অতিক্রম করেও ৬২ টি ইঞ্জিন ইতিমধ্যেই চিরেকা উৎপাদন করে ফেলেছে যার মধ্যে ৫৩ টি ডব্লিউ এ জি -৯, এবং ৯ টি ডব্লিউ এ পি-৭ এর ইঞ্জিন অন্তর্ভুক্ত। চিরেকার তৈরি ডব্লিউ.এ.পি-৭(৩০৭১৫)ইঞ্জিনটির সম্ভাব্য পরিষেবার গতি ঘন্টায় ১৪০ কিলোমিটার থেকে বাড়িয়ে ১৬০ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টা করা হয়েছে । সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি ইঞ্জিন টিকে পরীক্ষামূলক ভাবে ঘন্টায় ১৮০ কিলোমিটার বেগে চালানো সম্ভব হয়েছে। চিরেকার উৎপন্ন ৯ হাজার অশ্বশক্তি সম্পন্ন ৯০০০২ নাম্বার মালগাড়িটি সফলতার সহিত ঘণ্টায় ১০০ কিলোমিটার বেগে ওসিলেশন এবং ইডিবি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে। উপরন্ত ৯ হাজার অশ্বশক্তি সম্পন্ন আরও দুটি ডব্লিউ.এ.জি-৯ এইচ.এইচ এর উৎপাদনের কাজ চলছে।তেজাসে ব্যবহারের জন্য ডব্লিউ.এ.পি -৫ এর দুটি রেল ইঞ্জিন (৩০৫১২ এবং ৩০৫১৩) কে এরোডাইনামিক ডিজাইনে রি-প্রোফাইলিং করা হয়েছে। দুটি ক্যাবের প্রোফাইলে পুশ-পুল প্রযুক্তি সাথে উচ্চ গতির জন্য বিশেষ প্রযুক্তির প্রয়োগ করা হয়েছে এবং দুটি ইঞ্জিনই জাতির উদ্দেশ্যে প্রেরণের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।
চিরেকার ডানকুনি ইউনিটি চলতি আর্থিক বর্ষ ২০২০-২১ এর ৩১ শে জুলাই পর্যন্ত কোভিড-১৯ মহামারী এর কারণে উৎপন্ন বাধা-বিপত্তি সত্বেও ৫টি বৈদ্যুতিক রেল ইঞ্জিন সফলতার সহিত উৎপাদন করেছে। ডানকুনি ইউনিটি তার জন্মলগ্ন থেকে এখনো পর্যন্ত সর্বমোট ১৪৫ টি রেল ইঞ্জিন নির্মাণ করেছে। এই উপলক্ষে এই সমস্ত আধুনিক প্রযুক্তিগত অগ্রগতির জন্য মহাপ্রবন্ধক চিরেকা এবং ডানকুনি একককের সকল কর্মচারীদের আন্তরিক অভিনন্দন জানান।
মহাপ্রবন্ধক শ্রী প্রভীন কুমার মিশ্র চিরেকার বিভিন্ন বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ উপলব্ধির উপর আলোকপাত করেন ।
চিরেকা মহিলা কল্যাণ সংগঠন কর্তৃক পরিচালিত শিশু বিহার,আশা কিরণ বিদ্যালয় ও অন্যান্য ইউনিট এবং আরপিএফ ময়দানেও সরকার প্রদত্ত কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ রোধের বিভিন্ন সতর্কতামূলক নির্দেশিকা পালনের সাথে এদিন ত্রিবর্ণ-রঞ্জিত পতাকা উত্তোলন করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *