হাইকোর্ট সংবাদ

‘অভিযুক্ত কখনোই তদন্তকারী সংস্থা পছন্দ করতে পারে না’, শুভেন্দু মামলায় হাইকোর্টে

‘অভিযুক্ত কখনোই তদন্তকারী সংস্থা পছন্দ করতে পারেনা’ শুভেন্দু মামলায় হাইকোর্ট

মোল্লা জসিমউদ্দিন টিপু,
বুধবার কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজশেখর মান্থারের এজলাসে উঠেছিল রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর দায়ের করা মামলা। শুভেন্দু দাখিল পিটিশনে আর্জি রেখেছেন – ‘ রাজ্য পুলিশের দায়ের করা মামলা গুলি কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই কে দেওয়া হোক, নতুবা খারিজ করা হোক।কেননা এগুলি রাজ্য সরকারের প্রতিহিংসাপরায়ণ মামলা’। ইতিমধ্যেই নন্দীগ্রাম বিধানসভার পুন গননা চেয়ে মামলা টি কলকাতা হাইকোর্ট থেকে সরিয়ে দেশের অন্য যেকোনো রাজ্যের হাইকোর্টে চলবার জন্য সুপ্রিম কোর্টের দারস্থ হয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। সুপ্রিম কোর্টে দাখিল হওয়া হলফনামায় শুভেন্দু জানিয়েছেন – ‘ বিচারব্যবস্থা কে প্রভাবিত করার চেস্টা হচ্ছে ‘। বুধবার দুপুরে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজশেখর মান্থার রাজনৈতিক প্রতিহিংসা পরায়ণ মামলায় পর্যবেক্ষণে জানিয়েছেন – ‘ পুলিশ যদি কোন অভিযোগই না পাবে,তাহলে মামলা দায়ের হলো কিভাবে?  তাছাড়া কোন অভিযুক্ত ব্যক্তি তাঁর নিজের পছন্দমতো তদন্তকারী সংস্থা বেছে নিতে পারেন না’৷ শুভেন্দুর আইনজীবী জানিয়েছেন – ‘ রাজ্য সরকার রাজনৈতিক প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে একের পর এক মামলা দিচ্ছে।রাজ্য পুলিশের পক্ষে আসল সত্য প্রকাশ করা সম্ভব নয়।তাই সিবিআই কে আসল সত্য উদঘাটনে এগিয়ে আসতে হবে।  গত ২০০৬ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত তৃণমূলে থাকাকালীন শুভেন্দুর বিরুদ্ধে মামলা নেই।যখনই বিজেপি তে যোগদান করলেন।তখন থেকেই মানিকতলা, ফুলবাগান,নন্দীগ্রাম, কাঁথি,তমলুক প্রভৃতি থানায় মামলা দাখিল হয়েছে’। মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে বিরোধী দলে থাকার জন্য একসময় ১৬৩ টি মামলা হয়েছিল তবে তৃণমূলে ফিরে আসায় সেই মামলা গুলিতে নীরব রাজ্য পুলিশ বলেও অভিযোগ উঠছে।রাজ্যের এডভোকেট জেনারেল কিশোর দত্ত এদিন জানান – ‘ শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে মানিকতলা থানায় অভিযোগ টি খুবই গুরত্বপূর্ণ। অভিযুক্ত কখনোই ঠিক করতে পারে না তদন্তকারী সংস্থা ‘। গত মাসে কলকাতা হাইকোর্টের কাছে নিজের বিরুদ্ধে সমস্ত মামলার তদন্তভার সিবিআই কে দেওয়া হোক, কিংবা সমস্ত এফআইআর খারিজ করা হোক।এই দাবি রেখে এই মামলা টি দাখিল করেছেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী।এই মামলার দাখিল পিটিশনে শুভেন্দু অধিকারী জানিয়েছেন – ‘ দল বদলের পর রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে রাজ্য পুলিশ এবং কলকাতা পুলিশের মাধ্যমে বহু ভুয়ো মামলা করেছে। হয় এই মামলা গুলির তদন্তভার কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিবিআই কে দেওয়া হোক কিংবা সমস্ত এফআইআর খারিজ করা হোক’।  ইতিমধ্যেই কাঁথি পুরসভার ত্রিপল চুরি কান্ডে এফআইআর খারিজ সহ আইনী রক্ষাকবচ চেয়ে মামলা দাখিল করেছেন শুভেন্দু।তবে সেই মামলায় কোন আইনী রক্ষাকবচ পাননি তিনি।তবে এই মামলায় তাঁর ঘনিষ্ঠ চঞ্চল নন্দী কলকাতা হাইকোর্টে অন্য বেঞ্চে সাময়িক আইনী রক্ষাকবচ পেয়েছেন।ঠিক এইরকম পরিস্থিতিতে বুধবার কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজশেখর মান্থার এর এজলাসে উঠে শুভেন্দুর সমস্ত মামলায় সিবিআই কে তদন্তভার দেওয়ার মামলা। আজ অর্থাৎ বৃহস্পতিবার দুপুরে রয়েছে এই মামলার পরবর্তী শুনানি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *