প্রশাসন

সোশ্যাল মিডিয়ায় না বলে আদালত কে জানান, পেগাসাস নিয়ে মামলাকারীদের নির্দেশ

সোশ্যাল মিডিয়ায় না বলে আদালত কে জানান, পেগাসাস নিয়ে সুপ্রিম নির্দেশ 

মোল্লা জসিমউদ্দিন টিপু
মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি এন ভি রামান্নার এজলাসে উঠে পেগাসাস নিয়ে মামলা। সেখানে সুপ্রিম কোর্ট মামলা নির্দেশ দেয় – ‘ সোশ্যাল মিডিয়ায় এত বিতর্ক কেন, যা বলার আদালত কে বলুন’। সুপ্রিম কোর্টের পর্যবেক্ষণ – ‘ পেগাসাস স্পাইওয়ার ফোনের তথ্য চুরি করার এমন নিশ্চিত প্রমাণ পাওয়া যায়নি’। মামলাকারীদের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন কপিল সিব্বল।তথ্য প্রযুক্তি আইনে ৬৯ নং ধারায় সরকার সার্বভৌমত্ব, আইনশৃঙ্খলা, অপরাধের সুত্র জানতে ফোনে আড়ি পাততে পারে।পেগাসাস ইস্যুতে সংসদ ভবনে চলতি বাদল অধিবেশনে বিরোধীরা তুমুল হইহট্টগোল চালিয়েছে। যার জেরে সংসদ চলেনি বলা যায়।ঠিক এইরকম পরিস্থিতিতে সুপ্রিম কোর্টের পেগাসাস ইস্যুতে ৯ টি পিটিশন দাখিল করা হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এনভি রামান্না এবং বিচারপতি সূর্যকান্তের ডিভিশন বেঞ্চে উঠে এই সব মামলাগুলি।সেখানে সুপ্রিম কোর্ট মামলাকারীদের উদ্দেশ্য জানায় – ‘ আপনারা সবাই শিক্ষিত, তাহলে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে কেন মামলা করলেন না? ‘ সেইসাথে সুপ্রিম কোর্টের পর্যবেক্ষণ -‘ পেগাসাস স্পাইওয়ার নিয়ে মিডিয়ার যে তথ্য প্রকাশিত হয়েছে, তা সত্যি হলে বিষয়টি খুবই গুরত্বপূর্ণ ‘। আড়িপাতা সত্যি হলে তথ্যপ্রযুক্তি আইন এবং টেলিগ্রাফ আইনে মামলা দাখিল করা হলো না কেন? এই প্রশ্নও তুলে সুপ্রিম কোর্ট। এই বিষয়ে কেন্দ্রের মতামত চাওয়া হবে বলে জানিয়েছে আদালত।। অন্য এক পিটিশনে ‘এডিটর গিল্ড অফ ইন্ডিয়া’ পেগাসাস ইস্যুতে বিশেষ তদন্তকারী টিম গঠনের আবেদন রেখেছে সুপ্রিম কোর্টের কাছে মামলাকারীদের মধ্যে আইনজীবী মনোহর লাল শর্মা, সিপিএম সাংসদ জন ব্রিটাস, সাংবাদিক এন রাম, শশী কুমার অন্যতম। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *