পুলিশ

৩৫ জন নাবালিকা কে নিষিদ্ধপল্লী থেকে উদ্ধার করলো আসানসোল পুলিশ

লছিপুর যৌন পল্লী থেকে অভিযান চালিয়ে বড়সড় সাফল্য পেল আসানসোল দুর্গাপুর কমিশনারেট এর পুলিশ উদ্ধার হয় প্রচুর নাবালিকা

কাজল মিত্র :- আসানসোলের নিয়ামতপুর লছিপুর যৌন পল্লী থেকে বুধবার রাতে অভিযান চালিয়ে বড়সড় সাফল্য পেল আসানসোল দুর্গাপুর কমিশনারেট এর পুলিশ।

জানাজায় যে কুলটি থানার নিয়ামতপুর যৌনপল্লীতে অপ্রাপ্তবয়স্ক বা নাবালিকাদের দিয়ে এখানে যৌন ব্যবসা করানো হচ্ছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে,ওয়েস্ট বেঙ্গল কমিশন ফর প্রোটেকশন অব চাইল্ড রাইটস (WBCPCR) এর নির্দেশে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে পশ্চিম বর্ধমান জেলা প্রশাসন ও আসানসোল- দুর্গাপুর পুলিশ কমিশনার যৌথ ভাবে বুধবার রাতে এই অভিযান চালায়।অভিযান চালিয়ে প্রায় ৩৫ জন নাবালিকা উদ্ধার করা হয়।যারফলে গোটা এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে।
এই অভিযানে বিপুল সংখ্যায় আধিকারিক ও পুলিশ বাহিনী নিয়ে WBCPCR চেয়ারপার্সন অনন্যা চক্রবর্তী সহ পশ্চিম বর্ধমানের জেলা শাসক বিভু গোয়েল ও আসানসোল দুর্গাপুরের পুলিশ কমিশনার অজয় ​​কুমার ঠাকুর নিজে উপস্থিত ছিলেন।

অভিযান শেষে WBCPCR চেয়ারপার্সন অনন্যা চক্রবর্তী বলেন, আমাদের কাছে খবর ছিলো যে, এই যৌন পল্লীতে অপ্রাপ্তবয়স্কদের দিয়ে ব্যবসা করানো হচ্ছে। তার ভিত্তিতে এর তদন্ত করে অভিযান চালানো হয়। এখান থেকে উদ্ধার হওয়া মেয়েদেরকে হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। তাদের অধিকাংশই অপ্রাপ্তবয়স্ক।তাদের পরীক্ষা করার পরে বাড়ির খোঁজ করে যার যার বাড়িতে পাঠানো হবে।
জেলা শাসক বিভু গোয়েল বলেন,মেয়েপাচারকারী একটি গোপন সূত্র থেকে জানা জায় যে এখানে অল্প বয়সী মেয়েদের আনা হয়েছে এছাড়া WBCPCR এর তথ্যের ভিত্তিতে জেলা ও পুলিশ প্রশাসনের একটি দল গঠন করে সকাল থেকে তদন্ত নেমেপড়ে ।
তার পরেই অভিযান চালিয়ে এখানে থেকে বেশ কিছু অল্প বয়স্কা মেয়ে উদ্ধার হয় যাদের
যৌন কাজে লাগানোর জন্য আনা হয়েছিল ।তবে উদ্ধার হওয়া মেয়েদের কি ভাবে আনা হয়েছে তার তদন্ত করা হবে। তাদের বয়স যাচাই করার পরই পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নাবালিকাদের এখান থেকে মুক্ত করে সকলকে তাদের বাড়ি পৌছানোই মূল উদ্দেশ্য ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *