হাইকোর্ট সংবাদ

রোজভ্যালি মামলায় আধিকারিকদের ভূমিকা খতিয়ে দেখুক ইডি,চিঠি সিবিআইয়ের

রোজভ্যালি মামলায়  আধিকারিকদের ভূমিকা দেখুক ইডি, চিঠি সিবিআইয়ের 

মোল্লা জসিমউদ্দিন টিপু
রোজভ্যালি আর্থিক প্রতারণা মামলায় নুতন মোড়।এবার তদন্তকারী কেন্দ্রীয় সংস্থা ইডির একদা আধিকারিকদের ভূমিকা খতিয়ে দেখতে চিঠি পাঠালো আরেক কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিবিআই। এই দুই কেন্দ্রীয় সংস্থায় রোজভ্যালি আর্থিক প্রতারণা মামলায় তদন্তকারী হিসাবে রয়েছে। রোজভ্যালি কর্তা গৌতম কুন্ডু – শুভ্রা কুন্ডুর সাথে বোঝাপড়া ছিল ইডির একদা তদন্তকারীদের।এই মর্মে ইডির ভিজিল্যান্স বিভাগ কে চিঠি পাঠিয়েছে সিবিআইয়ের কলকাতা শাখা দপ্তর। রোজভ্যালি আর্থিক প্রতারণা মামলায় তদন্তের প্রথম পর্বে ইডির আধিকারিকদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে সিবিআই। এই ভূমিকা খতিয়ে দেখা হলে সামগ্রিকভাবে রোজভ্যালি মামলায় গতি আসবে বলে মনে করছে সিবিআই। সম্প্রতি কলকাতার বিচারভবনে সিবিআই এজলাসে চলছে রোজভ্যালি আর্থিক প্রতারণা সংক্রান্ত মামলা।এই মামলায় আরেক কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা ইডির কলকাতা শাখার আধিকারিক মনোজ কুমার কে তলব করা হয়েছিল। এই তদন্তকারী ইডি অফিসারের সাক্ষ্যদানের কথা ছিল।অপরদিকে করোনা আক্রান্ত জেলবন্দি শুভ্রা কুন্ডু ওড়িশা হাইকোর্টে জামিনের আবেদন জানিয়েছিলেন। যার শুনানি ছিল গত ৯ জুন।ওইদিনই রোজভ্যালি আর্থিক প্রতারণা মামলায় আরেক কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই শুভ্রা কুন্ডুর জামিনের বিরোধিতা করে আরেক কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা ইডির অফিসার মনোজ কুমার কে নিয়ে হলফনামা জমা দেয়।সেখানে একদা ইডির অধিকারিক মনোজ কুমারের সাথে অভিযুক্ত শুভ্রা কুন্ডুর ঘনিষ্ঠতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। যদিও ইডির এই আধিকারিক কে বদলী করে দেওয়া হয়েছে শুল্ক দপ্তরের মূল অফিসে। কলকাতা পুলিশের আর্থিক দুর্নীতি মামলায় একসময় গ্রেপ্তার হয়েছিলেন এই আধিকারিক। যদিও ওই মামলায় তিনি জামিনে রয়েছেন। তবে রোজভ্যালি আর্থিক প্রতারণা মামলায় তদন্তকারী অফিসার হিসাবে গৌতম কুন্ডুর যে দুটি মোবাইল সিজ করেছিলেন। তার কলডিটেল থেকে অন্যান্য তথ্য কিছুই মিলেনি।অভিযোগ, শুভ্রা কুন্ডুর সাথে অতিরিক্ত ঘনিষ্ঠতার কারণে তিনি প্রমাণ লোপাট করেছিলেন। রোজভ্যালি কর্তা গৌতম কুন্ডু জেলে থাকাকালীন শুভ্রা কুন্ডু ১৫ কোটি টাকা সরিয়েছেন বলে অভিযোগ। পাশাপাশি মুম্বাই এবং কলকাতাতেই দুটি বিলাসবহুল ফ্লাট নিয়েছিলেন। ২০১৫ সালে গ্রেপ্তার হন শুভ্রা কুন্ডু। মূলত টাকা পাচার অভিযোগ তার বিরুদ্ধে। গত ৯ জুন সিবিআইয়ের তদন্তকারী অফিসার সোজেন শেরপা ১৪ পাতার হলফনামায় ইডির এই প্রাক্তন কর্তার সাথে ঘনিষ্ঠতার অভিযোগ আনে। কলকাতার বিচারভবনে সাক্ষ্য দেওয়ার কথা ছিল ইডির প্রাক্তন এই আধিকারিকের।এরেই মধ্যে ইডির ভিজিল্যান্স বিভাগ কে চিঠি লিখে সিবিআইয়ের কলকাতা দপ্তর জানালো – ‘ রোজভ্যালি আর্থিক প্রতারণা মামলায় তদন্তের প্রথম পর্বে ইডির আধিকারিকদের ভূমিকা খতিয়ে দেখা হলে সামগ্রিক ভাবে এই মামলার তদন্তে অগ্রগতি পাবে’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *