প্রশাসন

বেআইনী অস্ত্র লাইসেন্স ইস্যুতে কাশ্মিরের ডিএমরা?

বেআইনী অস্ত্র লাইসেন্স ইস্যুতে কাশ্মিরের ডিএমরা!

ধনঞ্জয় বন্দ্যোপাধ্যায় ,
দেশের সবথেকে হানাহানির জায়গা হিসাবে জম্মু ও কাশ্মীর কে চিনেন প্রত্যেকেই।এত অস্ত্রের ঝলকানি দেশের অন্য রাজ্যগুলিতে নেই।ঠিক এইরকম পরিস্থিতিতে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিবিআই রাজস্থান পুলিশের সন্ত্রাসদমন শাখার সূত্র ধরে জম্মু ও কাশ্মীরের বেশকিছু জেলাশাসকের পর্দা ফাঁস করলো। যা বেআইনী অস্ত্র লাইসেন্স কেলেংকারী হিসাবে দেশে এতবড় জালিয়াতি হয়নি কোথাও।টাকার বিনিময়ে অপরাধীদের কাছে সহজেই  পিস্তলের লাইসেন্স পৌঁছে গেছে। এই মামলায় নাম জড়িয়েছে বেশ কয়েকজন জেলাশাসকের।যদিও সরাসরি অপরাধীদের পিস্তল লাইসেন্স ইস্যু বিষয়টি অস্বীকার করে গেছেন অভিযুক্ত  জেলাশাসকরা। ২০১২ সাল থেকে বেআইনী অস্ত্র লাইসেন্স গুলি হয়েছে বলে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার দাবি।সিবিআই এই মামলায় ৪০ টি জায়গায় তদন্তের জন্য গিয়েছে। পাশাপাশি ২০ টি অস্ত্র কারখানায় হানা দেয় তারা।তাতে দেখা যায় শাহিদ ইকবাল চৌধুরী এবং নীরজ কুমার জেলাশাসক পদে থাকাকালীন এই সব কান্ড ঘটিয়েছেন! শাহিদ ইকবাল চৌধুরী ৬ টি জেলায় জেলাশাসক হিসাবে কাজ করেছেন।২০১৭ সালে রাজস্থান পুলিশের সন্ত্রাস দমন শাখা বেশ কিছু অস্ত্রের কারখানার খোঁজ করতে গিয়ে জম্মু ও কাশ্মীর প্রশাসনের আমলাদের যোগসূত্র পায়।পরে সিবিআই নামে এই ঘটনার তদন্তে। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *