হাইকোর্ট সংবাদ

কমিশনের দাখিল রিপোর্টের পরিশিষ্ট অংশ পাবেনা রাজ্য, কলকাতা হাইকোর্ট

কমিশনের দাখিল রিপোর্টের পরিশিষ্ট অংশ পাবেনা রাজ্য, বৃহত্তর বেঞ্চ 

মোল্লা জসিমউদ্দিন টিপু, ২৩ জুলাই
চলতি সপ্তাহে ভোট পরবর্তী হিংসা নিয়ে মামলার শুনানি চলে কলকাতা হাইকোর্টের পাঁচ সদস্যের বৃহত্তর বেঞ্চে।সেখানে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের দাখিল পূর্নাঙ্গ রিপোর্ট কে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে মামলার শুনানিতে অভিযোগ তুলেছিলেন রাজ্যের পক্ষে দুই জাঁদরেল  আইনজীবী কপিল সিব্বাল এবং অভিষেক মনু সিংভি। তবে রাজ্যের এডভোকেট জেনারেল কলকাতা হাইকোর্টের বৃহত্তর বেঞ্চে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের দাখিল পূর্নাঙ্গ রিপোর্ট প্রসঙ্গে কোথায় কোথায় ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে তার তথ্য বিশদে জানতে চেয়ে আদালতে সওয়াল চালিয়েছিলেন।তাঁর যুক্তি – ‘ ধর্ষণের ঘটনা গুলি তথ্য না পেলে কিভাবে জবাবি রিপোর্ট দেওয়া যায়? ‘ তবে আদালত জানিয়ে দেয় – ‘ জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্টের ওই অংশ বাদ দিয়ে বাকি বিষয়ে জবাবী রিপোর্ট আগামী ২৬ জুলাই অর্থাৎ সোমবার জানাতে হবে রাজ্য কে’। এই মামলার পরবর্তী শুনানি রয়েছে আগামী বুধবার। কলকাতা হাইকোর্টের বৃহত্তর বেঞ্চ পরিস্কার ভাবে জানিয়ে দেয় – ‘ জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্টের পরিশিষ্ট অংশ পাবেনা রাজ্য’। ধর্ষণ বিষয়টি জনসম্মুখে এলে নির্যাততাদের অসুবিধা হবে বলেও জানিয়ে দেয় আদালত। অপরদিকে রাজ্যের দুই আইনজীবী জাতীয় মানবাধিকার কমিশন এর রিপোর্ট নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। অভিযোগকারীদের বাংলায় লেখা অভিযোগের সাথে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের দাখিল ইংরেজি ভাষায় রিপোর্টে কোন মিল নেই।যা বিভ্রান্তিকর বলে অভিযোগ রাজ্যের আইনজীবীদের।অপরদিকে মামলাকারীদের আইনজীবী মহেশ জেঠলামালিনি জানান – ‘ রাজ্য পুলিশের উপর কোন আস্থা নেই আক্রান্তদের।এখনও অভিযোগ তুলে নিতে ক্রমাগত চাপ বাড়াচ্ছে রাজ্য পুলিশের বড় অংশ ‘। ইতিমধ্যেই কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে নিহত বিজেপি কর্মী অভিজিৎ সরকারের মৃতদেহের দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্ত হয়েছে ভিডিওগ্রাফির মাধ্যমে। তা আদালতে রিপোর্ট আকারে জমা পড়েছে।যদিও তদন্তে নিস্ক্রিয়তা নিয়ে পুলিশের তরফে সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। বিশেষ সুত্রে জানা গেছে,  কলকাতা হাইকোর্টের বৃহত্তর বেঞ্চের অর্ডারকপি তাঁরা সংগ্রহ করে আদালতের নির্দেশ গুলি ( তদন্ত বিষয়ক)  খুটিয়ে দেখছেন পুলিশ অফিসাররা। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *