সাহিত্য বার্তা

মর্ত্যে থেকে স্বর্গে দেবী দুর্গার উদ্দেশ্যে চিঠি

সম্পাদক সমীপেষু,
মর্ত‍্যে থেকে স্বর্গে দেবী দুর্গার উদ্দেশ্যে চিঠি ‌

শ্রী চরণেষু দেবী,
হে মা শক্তিরূপিণী দেবী দুর্গা ,হে মা রণচণ্ডীকা ,তুমি কৈলাস ছেড়ে শিব ঠাকুরকে ভুলে একবার আমাদের এই মর্ত‍্য ধামে নামো ‌। তাহলে বুঝতে পারবে অকাল বোধনের মতো অসময়ে কেন আমার এ চিঠি ‌। প্রকৃতির রুদ্র রূপ কি ভয়ংকর তা লিখতে আমার হাত কাঁপছে ! মর্ত‍্যভূমি এখন শশ্মান ভূমিতে পরিনত হয়েছে ‌। কেবল দুঃখ কষ্ট নিয়ে বেঁচে আছি । ঝড়-তুফান -বন‍্যা -মহামারী নানা অরাজকতা এখন চলছে । কখনও সুনামি ধেয়ে এসে আমাদেরকে সলিল সমাধির ভয় দেখায় । কখনও আমাজনের দাবানলে বন‍্য পশু-সবুজের জীবন্ত সমাধি দেখে চোখে জল ধরে রাখতে পারি না ‌। আমফানের মতো দানবিক ঝড়ে আমাদেরকে সর্বহারা করেছে ।কোভিডের দাপাদাপিতে এখন মৃত্যু মিছিল চলছে। মনে হয় মৃত নগরীর কোন এক অজানা গুহায় শুধু বেঁচে আছি । কোভিডে ভয়ে অফিস-আদালত -কলকারখানা -রাস্তা -ঘাট – হাট -বাজার সব বন্ধ। সব শুনসান ‌। আমরা এখন বন্ধের দেশে কেবল বন্দী নাগরিক । পেটে টান পড়ে , চিন্তা বাড়ে । অঘোষিত অর্থনৈতিক অবরোধও বলা যায় ‌। দুর্ভিক্ষের দেশ আজ শুধু ক্ষুধায় মরে ।

স্বর্গ যদি মর্ত‍্য হয় দেবতাগণ কখনও ওই মর্ত‍্যে বসবাস করতে পারে ? কেন আমাদের এই মর্ত‍্য দেবতাদের বসবাস যোগ্য নয়,বলছি তবে শোন । ছোটবেলায় ধারাপাতে ৮ এ অষ্টবসু মুখস্ত করার কথা নিশ্চয় আমাদের মনে আছে । দক্ষ রাজার কন‍্যা বসুর গর্ভজাত আট পুত্র হচ্ছে অষ্টবসু । তারা হচ্ছে -ভব,ধ্রুব, সোম,বিষ্ণু, অনিল, অনল,প্রত‍্যুষ এবং প্রভাস । ওই আট বসু মিলে বশিষ্ট মুনির আশ্রম থেকে কামধেনু চুরি করে ।উদ্দেশ্য প্রভাসের স্ত্রীর নরলোকে বসবাসকারি সখী জিতবতীকে ওই গাভীর দুধ পান করাতে চায় । ওই দুধ এক পলা পান করলে দশ সহস্র বছর বাঁচা যায় এবং চির যৌবন প্রাপ্ত হয় । এমন সুযোগ কে আর ছাড়ে । কিন্ত এবার যা হবার তাই হবে । বশিষ্ট মুনি ক্ষেপে গিয়ে তাদেরকে অভিশাপ দেন ‌‌। গাভী চুরির অভিযোগে তাদেরকে মর্ত‍্যে জন্ম গ্ৰহন করতে হয় ‌। অভিশাপের কথা শুনে তারা কান্নাকাটি শুরু করে দেয় । মুনির কাছে ক্ষমা চাইলে তিনি মুক্তির পথ বলে দেন ‌। গঙ্গা দেবীর হাত ধরে তাদের মুক্তি ঘটে । তাই জাহ্নবীদেবীকে স্বগ থেকে মর্ত‍্যে গঙ্গা হয়ে আসতে হয় । তিনি মর্ত‍্যের শ্রেষ্ঠ কুরু রাজা শান্তনুকে বিয়ে করেন । একের পর এক ওই অষ্টবসু তাঁর গর্ভে জন্মানোর সঙ্গে সঙ্গে তিনি তাদেরকে গঙ্গায় ভাসিয়ে দেন । অষ্টমবারে বাঁধা পড়লে বিয়ের শর্ত ভাঙ্গার জন‍্যে তিনি দেবব্রতকে রেখে স্বস্থানে ফিরে যান। এইভাবে সাত বসুর শাপমোচন হয় । কেবল দেবব্রত (ভীষ্ম ) থেকে যান মর্ত‍্যে । তিনি নিজে ওই গাভী চুরি করার জন‍্যে তাঁর পাপ তখনও ক্ষয় হয় না । আমরা জানি পরে কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে শর শয‍্যায় ইচ্ছা মৃত্যু বরণ করে তিনি শাপ মুক্ত হন ‌। তাই বলছি মা,মর্ত‍্য দেবতারা শাস্তি যোগ‍্য স্থান বলে গন‍্য করে ‌।
এবার কেন এ মর্ত‍্য নরকগুলজার বলছি তবে শোন ।
চুরিচামারি,খুনখরাপি ,ধর্ষণ, কাটমানিতে ‌বেঁচে থাকা ভীষণ দায় হয়ে উঠেছে। এ মর্ত‍্য যদি নরক হয় আমরা কি করে নরক বাস করি ‌‌‌ ‌‌! এ মর্ত‍্য যদি মর্ত‍্যেই থাকে আমি এ চিঠি কখনও পাঠাই ? স্বর্গের দ্বার রক্ষী জয়বিজয়ের কাছ থেকে ‌অধমের এই চিঠি নিয়ে একবার পড়লে জানতে পারবে এখানে এখন কি চলছে ‌। কিন্ত রক্ষীরা যদি ঘুষ খেয়ে চিঠিটা আটকে রাখে তুমি স্বর্গ থেকে মর্ত‍্যের কথা জানতে পারবে না । অশুভ শক্তি স্বর্গ থেকে মর্ত‍্যে সর্বত্র বিরাজ করছে ‌। স্বর্গে শুধু তুমি আছো বলে তারা শান্ত থাকে ‌। এখানে তুমি তো নেই ,তাই তারা কত দাপট দেখায় আমাদেরকে ! দেখ , চিঠিঠা যেন তোমার কাছে পৌঁছায় ‌‌‌। তুমি রুষ্ট হয়ে আমাকে অভিশাপ দিও না ‌‌‌। জানি শিব ঠাকুরকে ছেড়ে আসতে তোমার খুব মন খারাপ হবে । কিন্ত জগৎ রক্ষা করতে তোমাকে আসতেই হবে ‌‌‌অন‍্যথায় তোমার সৃষ্টি যে লয় হয়ে যায় ,মা । এই মর্ত‍্য ধামে মনুষ্য জাতি এখন শুধু ধ্বংসের পথে ‌।
তুমি তো একদিন দেবতাদের অনুরোধে অসুর মধুকৈটভকে নিধন করার জন‍্যে স্বর্গে পা রেখেছিলে । ওই অসুরকে নিধন করে তুমি স্বর্গে শুভ শক্তি প্রতিষ্ঠা করেছিলে । তাই স্বর্গে দেবতারা এখন সুখে শান্তিতে বসবাস করে । মাগো ,তুমি একবার স্বর্গ থেকে মর্ত‍্যে পা রাখ । রণচণ্ডীকা বেশ ধরে মধুকৈটভ র মতো অসুর রূপী অশুভ শক্তি বিনাশ করো ।স্বর্গ থেকে মর্ত‍্যে তুমি শুভ শক্তি প্রতিষ্ঠান করো । স্বর্গ -মর্ত‍্য জুড়ে তোমার যে যুদ্ধ এই মর্ত‍্যে সে যুদ্ধের শেষ হোক । তোমার করুনা ধারায় জগতের মলিনতা ধুয়ে যাক । রুদ্র মূর্তি ত‍্যাগ করে প্রকৃতি শান্ত হোক ‌। আসুরিক রূপ ত‍্যাগ করে মানুষ তাদের মনুষ্যত্ব ফিরে পাক । তোমার কৃপা পেলে লোভ-হিংসা -বিদ্বেষ দূর হবে ‌‌‌‌। আমাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হবে । মাগো আমাদেরকে চৈতন্যময় করো । মঙ্গলময় করো এ জগৎ যাতে আমরা সুখে শান্তিতে বসবাস করতে পারি ‌‌।
হে দেবী চণ্ডীকা ,হে দূর্গতি নাশিনী দেবী দুর্গা তোমার চরণে আমার শত কোটি প্রনাম ।

ইতি
তোমার একান্ত সেবক
অবলাকান্ত

ঠিকানা
অবলাকান্ত দাস
প্রযন্তে সুবল সরদার
মগ‍রাহাট
দক্ষিণ ২৪ পরগণ
তাং ১৮ ০৭ ২০২১
মুঠো ফোন ৯৬০৯০৫৮৬২০
স্থায়ী ঠিকানা -মর্ত‍্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *