প্রশাসন

করোনায় মানবিক হোক বেসরকারি হাসপাতালগুলি

লুঠেরা মাফিয়ার হাতে দেশ ও রাজ্য

স্নেহাশিস চক্রবর্তী

হায়রে দেশ, হায়রে দেশের সরকারের নিয়ন্ত্রন -:

‘কোভিড’ হলে যেটুকু জানছি –

১) কোনো ওষুধ নেই। শুধুই টেষ্ট করে ‘কোভিড’ হয়েছে কি না জেনে রুগীকে Isolate করতে হয় সংক্রমন যাতে না ছড়ায়।

২) Symptom দেখে জ্বর হলে প্যারাসিটামল, প্রয়োজনে Antibiotic দেওয়া। যেটি সাধারণ ফ্লু-এর ক্ষেত্রে এত বছর ধরে দেওয়া হচ্ছে, ৫-৭-১০ দিন এইসব ট্রিটমেন্ট করতে ৫০০-১০০০-২০০০ টাকার বেশি লাগার কথা নয়।

৩) শ্বাসকষ্ট থাকলে অক্সিজেন সাপোর্ট – বিশেষ ক্রিটিকাল রুগীর ক্ষেত্রে ভেন্টিলেশন লাগতে পারে।

অথচ, সাথে দেওয়া প্রভিশানাল বিলে দেখা যাচ্ছে রুগীকে শুধু ওষুধ দেওয়া হয়েছে প্রায় ৫,০০,০০০ ( পাঁচ লক্ষ) টাকার। আলাদা করে অক্সিজেনের খরচ নেওয়া হয়েছে আরো ১,২২,০০০ ( এক লক্ষ বাইশ হাজার) টাকার। মোট বিল ১০,৪০,০০০ ( দশ লক্ষ চল্লিশ হাজার) টাকা।

এ শুধু দিনে ডাকাতি নয়, একটি দেশের বা রাজ্যের সরকারগুলির আশ্রয়ে প্রশ্রয়ে বড়ো হয়ে ওঠা বড়ো বড়ো মাফিয়া সম্রাটদের কাজ।

সরকার ( রাজ্য ও কেন্দ্র) ও তার তাঁবেদার ডাক্তারকুল নিশ্চুপ। হয়তো বিরাট অংকের কাটমানি ( সারদা – নারদার মতো) এই বিলের সাথে অলিখিতভাবে যুক্ত আছেই আছে। না হলে এটা হতেই পারে না।

সাধারণ মানুষ মরছে হাজারে হাজারে আর সরকার নিয়ন্ত্রিত এইসব ডাকাত, মাফিয়ারা লুটেপুটে খাচ্ছেন দেশের মধ্যেই।

ভারত ইতিহাসগতভাবে বহুবার লুন্ঠিত হয়েছে পরদেশের দ্বারা, কিন্তু দেশের ভিতর সরকার নিয়ন্ত্রিত এমন লুন্ঠন অভূতপূর্ব।

জনগণ, একটু শিরদাঁড়া সোজা করার চেষ্টা করুন প্লিজ, লুঠেরা সরকার ও লুঠেরা হাসপাতাল, নারসিংহোমগুলো প্রয়োজনে জনআন্দোলনে বন্ধ করে দেওয়ার সময় মনে হয় উপস্থিত হয়েছে।

বিলটি সংগৃহীত হয়েছে ইন্টারনেট থেকে। সরকারের বুকের পাটা থাকলে বন্ধ করুন এসব, আপনাদের দলের মাফিয়াচক্রগুলোকে আগে ধ্বংস করুন, তারপর পুলিশ লেলিয়ে সাধারণ জনগণকে গরাদে ঢোকান – তা না হলে মানুষ কিন্তু আপনাদের পরিত্যাগ করছে, আর এই পরিত্যাগের বহর বাড়তেই থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *