পুলিশ

খুনে থমথমে মঙ্গলকোট অনুসন্ধানে সিআইডি,আটক ৪

খুনে থমথমে মঙ্গলকোট অনুসন্ধানে সিআইডি, আটক ৪

মোল্লা জসিমউদ্দিন টিপু ,  
পূর্ব বর্ধমান জেলার মঙ্গলকোট থানার সিউড়ে মঙ্গলবার ঘটনাস্থলে হাজির সিআইডির গোয়েন্দারা।যদিও তারা মঙ্গলকোটের অঞ্চল তৃণমূল সভাপতি অসীম দাস খুনের মামলায় তদন্তভার এখনও পাইনি।তবুও ভবিষ্যতে তদন্তের প্রয়োজনে তারা ঘটনাস্থলের নমুনা সংগ্রহ, এলাকাবাসীদের কাছে তথ্য নেওয়া এবং স্থানীয় থানার কাছে এই মামলার তদন্তের অগ্রগতি রিপোর্ট দেখা সবকিছুই দেখে রাখলো।ইতিমধ্যেই ফরেন্সিক দল ঘটনাস্থলের নমুনা সংগ্রহ করেছে।মঙ্গলকোট থানার পুলিশ এই খুনের মামলায় ৪ জন কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে রেখেছে। জেলা পুলিশের পদস্থ কর্তারা দফায় দফায় এই খুনের ঘটনায় তদন্তের গতি প্রকৃতিতে লক্ষ্য রাখছেন। মঙ্গলবার স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে পথ অবরোধ করে অঞ্চল তৃণমূল সভাপতি অসীম দাস খুনের  ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তারি দাবি করতে দেখা যায়।পুলিশ অবশ্য অবরোধকারীদের আশ্বাস দিয়েছে দোষীদের দ্রুত গ্রেপ্তারের।গত সোমবার সন্ধে সাড়ে সাতটা নাগাদ কাশেমনগর থেকে লাখুড়িয়ার সিউড় গ্রামে যেতে অন্ধকারছন্ন মেঠোপথে কয়েকজন দুস্কৃতি খুব কাছ থেকে গুলি করে খুন করে থাকে লাখুড়িয়া অঞ্চল তৃণমূল সভাপতি অসীম দাস কে।কেন এই খুন? তা নিয়ে সরগরম মঙ্গলকোট। মাস খানেক আগে নিগনে এক তৃনমূল নেতা কে দিনের আলোয় প্রকাশ্যে খুন করার অভিযোগ উঠে বিজেপির স্থানীয় নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে। সেই ঘটনার রেশ পুরোপুরি না কাটলেও ফের ঘটলো খুনের ঘটনা। ইতিমধ্যেই মঙ্গলকোটের শিমুলিয়া ১ নং অঞ্চল তৃণমূল সভাপতি ডালিম সেখ খুনের মামলায় তদন্ত চালাচ্ছে সিআইডি। তাই মঙ্গলকোটের খুনের রাজনীতি সম্পর্কে যথেষ্ট ওয়াকিবহাল সিআইডি। গত ২০১৪ সালে খাগড়াগড় বিস্ফোরণের পর মঙ্গলকোটের শিমুলিয়ায় ছিল কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সহ রাজ্য গোয়েন্দাদের ফোকাস। এরপর ডালিম সেখ সহ বেশ কয়েকজন শাসক দলের নেতা খুন হলেন। রাজ্য পুলিশের তরফে সিআইডি এসআইবি, ডিআইবি শাখা মঙ্গলকোট কে গোয়েন্দাগিরিতে গুরত্ব দেয় বেশি।এরেই মাঝে গত সোমবার সন্ধেবেলার লাখুড়িয়ার অঞ্চল তৃণমূল সভাপতি অসীম দাস গুলিবিদ্ধ হয়ে খুন হওয়ায় গোয়েদা দপ্তরের ভূমিকায় প্রশ্ন উঠছে নুতন করে। বিধানসভার ফলাফল প্রকাশ পরবর্তীতে সাংগঠনিক রদবদল নিয়ে চাপানউতোর চলছে পশ্চিম মঙ্গলকোটের চারটি অঞ্চলে।আবার বেশ কিছু বিজেপি কর্মী সাম্প্রতিক সময়কালে জেল থেকে ফিরেছে এই গ্রামে।নিহত অঞ্চল তৃণমূল সভাপতি অসীম দাসের ব্যবহৃত মোবাইল কললিস্ট, লোকেশন সহ কাশেমনগর থেকে সিউড় গ্রাম যেতে রাস্তায় দুধারে থাকা বেশকিছু দোকানপাটের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ তদন্তকারীদের তদন্তে গতি আনতে পারে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *