পুলিশ

কেতুগ্রামে বোমা বিস্ফোরণে উড়লো লাভপুরের যুবকের হাত

খায়রুল আনাম, ৭ জুলাই,

বোমা বাঁধতে গিয়ে বিস্ফোরণে লাভপুরের যুবকের হাত উড়ে গেল কেতুগ্রামে
           
বিগত রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনের সময় থেকেই বীরভূমের লাভপুর থানা এলাকা এবং পার্শ্ববর্তী বর্ধমান জেলার কেতুগ্রাম থানা এলাকার বিভিন্ন অঞ্চল  থেকে  বোমা, বোমা তৈরীর মশলা-সহ অন্যান্য সরঞ্জাম এবং আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধারের ঘটনা ঘটছিলো। সেই সময়ই মনে করা হচ্ছিল যে, এইসব ঘটনার মধ্যে একটা যোগসূত্র রয়েছে। গত ২৬ জুন  সকালে লাভপুর থানার বিষয়পুর গ্রামের বাইরে শ্মশানের পাশ থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় একটি নাইলনের থলি থেকে উদ্ধার করা হয় একটি বন্দুকের অংশ, ১ টি রাইফেল, ১ টি পিস্তল ও ৫ রাউণ্ড গুলি। কিন্তু এই ঘটনার কোনও হদিশ করতে পারেনি পুলিশ।        এরই মধ্যে ৭ জুলাই রাত্রে কেতুগ্রাম থানা এলাকার আমগড়িয়া গ্রামে বোমা বাঁধার সময় তাতে বিস্ফোরণ ঘটায় অষ্টম বাউড়ি নামে এক ব্যক্তির হাত উড়ে যায় এবং শরীরের বিভিন্ন অংশ ঝলসে গিয়েছে। বোমা বিস্ফোরণের তীব্রতায় কেঁঁপে ওঠে গোটা এলাকা।  খবর পেয়ে কেতুগ্রাম থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আহত অষ্টম বাউড়িকে উদ্ধার করে নিয়ে যায় বর্ধমানের কাটোয়া হাসপাতালে। এই অষ্টম বাউড়ির বাড়ি লাভপুরের ঠিবা এলাকায়। তাঁর মা জানিয়েছেন, ছেলে অষ্টম স্ত্রী, সন্তান নিয়ে শ্বশুরবাড়ি আমগড়িয়ায় থাকছিলো। মাঝেমধ্যেই সে ঠিবার বাড়িতে আসতো। রাত্রে কী ঘটেছে তা তিনি জানেন না।  অষ্টম বাউড়ি স্বীকার করেছে যে, বোমা বাঁধার সময় তাতে বিস্ফোরণ ঘটার ফলেই এই বিপত্তি ঘটেছে। তবে, তার দলে আর কারা কারা ছিলো, তা অবশ্য সে স্বীকার করেনি।  এদিকে লাভপুর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে যে, আহত অষ্টম বাউড়ি বিজেপি কর্মী হিসেবে পরিচিত এবং বিজেপি তাকে দিয়ে বোমা বাঁধিয়ে সন্ত্রাস করতো। অপর দিকে বিজেপির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, অষ্টম বউড়ির সাথে তাদের কোনও যোগ নেই।। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *