পুলিশ

লকডাউন সফল করতে রাস্তায় মঙ্গলকোট পুলিশ

জ্যোতিপ্রকাশ মুখার্জি


আবার প্রায় শুনশান লকডাউনের সাক্ষী থাকল পশ্চিম মঙ্গলকোটের বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা। এরজন্য সম্পূর্ণ কৃতিত্ব দাবি করতে পারে মঙ্গলকোট থানার পুলিশ আধিকারিকরা এবং কিছুটা এলাকার অধিকাংশ মানুষের সচেতনতা। কোনো কোনো জায়গায় একটু আধটু ভিড় থাকলে মৃদ্যু লাঠিচার্জ করে বা অনুরোধ করে তাদের বাড়িতে ফেরত পাঠানো হয়।কিন্তু কোথাও পুলিশি আতঙ্ক সৃষ্টি করা হয়নি।
করোনা সংক্রমণের হাত থেকে রাজ্যবাসীকে রক্ষা করার জন্য পূর্ব ঘোষণা মত ৮ ই আগষ্ট সারা রাজ্যের সঙ্গে মঙ্গলকোট ব্লকেও সম্পূর্ণ লকডাউন ঘোষণা করা হয়। লকডাউন সফল করার জন্য মঙ্গলকোট থানার পুলিশ সকাল থেকেই সক্রিয় ছিল। ফলে রাস্তাঘাট পুরো ফাঁকা ছিল। দোকানপাট ছিল বন্ধ। মূলত বিকেলের দিকে চায়ের দোকানগুলিতে ভিড় হয়। কিন্তু পুলিশের গাড়ি আসায় চাণক, জয়পুর, জালপাড়া বা উজিরপুর বাসস্ট্যাণ্ডে একটা চায়ের দোকানও খোলা ছিলনা। ফলে সেখানে মানুষজন প্রায় ছিলনা।
বিকেলে মঙ্গলকোট থানার এ.এস.আই সুভাষ ভৌমিক লকডাউন সফল করার জন্য পশ্চিম মঙ্গলকোটের বিভিন্ন এলাকায় ‘পেট্রোলিং’ – এ বের হন। তিনি বললেন – আমাদের থানার ওসির যোগ্য নেতৃত্বে আমরা যথাযথ ভূমিকা পালন করেছি। এছাড়া এলাকার অধিকাংশ মানুষ সচেতন হয়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য আমাদের কাজটা যথেষ্ট সহজ হয়েছে।তিনি আশা করেন আগামী লকডাউনের দিনগুলিতে এলাকার মানুষ নিজের এবং পরিবারের স্বার্থে এইভাবেই সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেবে। তিনি মঙ্গলকোট থানার পক্ষ থেকে উজিরপুর বাসস্ট্যাণ্ডে কয়েকজনকে মাস্ক ব্যবহার করার জন্য অনুরোধ করেন।
লকডাউন সফল করার ক্ষেত্রে মঙ্গলকোট থানার ভূমিকায় এলাকার মানুষ খুব খুশি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *