প্রশাসন

সালিশি সভা ডেকে বয়কট আদিবাসী সমাজে

খায়রুল আনাম সম্পাদক সাপ্তাহিক বীরভূমের কথা,

সালিশি সভা ডেকে বয়কট আদিবাসী সমাজে
       
প্রায় বছর খানেক আগে  আদিবাসী সমাজের মোড়লের নিদানে বয়কট করা হয়েছিলো গ্রামের একটি আদিবাসী পরিবারকে। এবার বয়কট হওয়া সেই আদিবাসী পরিবারের  একটি মেয়ের বিয়েতে যাওয়ার অপরাধে,  গ্রামের মোড়লের নিদানে ওই  গ্রামের ১২টি পরিবারকে বয়কট শুরু করলো আদিবাসী সমাজের মানুষজন। আর এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই হৈ চৈ শুরু হয়ে গিয়েছে বিভিন্ন মহলে। কিন্তু বয়কটের মুখে পড়া ওই ১২ টি আদিবাসী পরিবারের প্রায় ৭৫ জন সদস্য এখন চরম দুর্বিপাকে পড়া সত্বেও কোথাও অভিযোগ জানাতে পারছেন না। তাঁরা চাইছেন, প্রশাসন নিজে থেকে এগিয়ে এসে সমস্যার সমাধান করুক। এই ঘটনা ঘটেছে বীরভূমের  আদিবাসী অধ্যুষিত সাঁইথিয়া থানার গোরাইপুর গ্রামের আদিবাসী মহল্লায়।    ঘটনার সূত্র সন্ধানে জানা যায়, প্রায় বছর খানেক আগে গ্রামের আদিবাসী মহল্লার  সুমন সোরেন বিয়ে করেন আদিবাসী সমাজের মোড়লের নিদান না মেনে। তারপর থেকেই  গ্রামের আদিবাসী  সমাজের মোড়ল  শরৎ হেমব্রমের  নিদানে সুমন  সোরেনের পরিবারকে বয়কট করা শুরু হয়। বিগত প্রায় বছর খানেক ধরে সুমন সোরেনের পরিবারের সঙ্গে আদিবাসী সমাজের কেউ মেলামেশা করছেন না। কিন্তু বুধবার  ২৩ জুন সুমন সোরেনের  বোনের বিয়ে থাকায় গ্রামেরই তাঁদের আত্মীয়-স্বজনের  ১২ টি পরিবারের লোকজন বিয়ে বাড়িতে যান। আর তারপরই  ওই ১২ টি পরিবারকেও বয়কট করার নিদান দেন  আদিবাসী সমাজের মোড়ল  শরৎ হেমব্রম। এরপরই বৃহস্পতিবার ২৪ জুন সকাল থেকেই ওই ১২ টি পরিবারকে  বয়কট করা শুরু হয়েছে।  ওই ১২ টি পরিবারের প্রায় ৭৫ জন সদস্যকে গ্রামের সরকারি স্কুলের কলে পানীয় জল  নিতেও বাধা দেওয়া হয়।  জল আনতে গেলে  তাঁদের কলসি ভেঙে  দেওয়া হয়।  নামতে দেওয়া হয়নি গ্রামের পুকুরেও।  ওইসব পরিবারের সদস্যরা বলছেন, এভাবে চলতে থাকলে তাঁরা জল না খেতে পেয়েই মারা পড়বেন।  তাঁরা চাইছেন, এই সমস্যা সমাধানের জন্য   প্রশাসনই  স্বতঃস্ফূর্তভাবে এগিয়ে এসে, তাঁদের মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচাক ।।              

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *