প্রশাসন

সুন্দরবনে ইয়াসের দুর্গতদের পাশে ‘সেহারাবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ‘

সুন্দরবনে ইয়াসে দুর্গতদের পাশে ‘সেহারা বাজার রহমানিয়া ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ‘

শফিকুল ইসলাম (দুলাল)

আমিরুল ইসলাম,

; পূর্ব বর্ধমান জেলার ‘সেহারা বাজার রহমানিয়া ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট’ ত্রাণ নিয়ে দীঘা সমুদ্র উপকূল থেকে সুন্দরবন বিচ্ছিন্ন দ্বীপে পৌঁছে গেল ।  এই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সেহারাবাজার  রহমানিয়া ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট সারা বছর ধরে বিভিন্ন জনমুখী  কাজ করে চলেছে। শিক্ষার জন্য ‘রহমানিয়া আল আমিন মিশন’, স্বাস্থ্যের জন্য ‘সেফা দাতব্য হাসপাতাল’, ভবঘুরেদের জন্য আবাসন থেকে শুরু করে হজ ওমরাহ বিভাগ নিয়ে ১< টি প্রতিষ্ঠান নিরলস ভাবে মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছে।  রহমানিয়া ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের মাধ্যমে বিগত দশ বছর ভূমিকম্প থেকে বন্যাত্রাণ সমস্ত কাজে তে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে গিয়েছে ।  ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক হাজী কুতুবুদ্দিন তার সুদক্ষ নেতৃত্বে মিশনের ছেলেদের নিয়ে মালয়েসিয়ায় ভারতের পতাকা উড়িয়েছেন  আবার নেপালের ভূমিকম্পে হাজী সাহেব নিজে গিয়ে ত্রাণ দিয়ে এসেছেন। এবার ইয়াস বিদ্ধস্ত দীঘা শঙ্করপুর এ নিজ  সংস্থার অন্য কর্মকর্তাদের নিয়ে গত ১৫ জুন অসংখ্য মানুষকে ত্রাণ বিলি করে এসে গত ১৮ জুন সুন্দরবন  গোসাবা এলাকার গদখালী থেকে ২ ঘন্টার লঞ্চে সোনাগাও নামে ইয়াস বিদ্ধস্ত অসহায়  ৫০০টি  পরিবারের হাতে ত্রাণ তুলে দিলেন তিন লক্ষ টাকার খাদ্য সামগ্রী  যেমন চাল, ডাল, আলু পিয়াঁজ, চিরে, মুসুর ডাল, সয়াবিন, সেনিটারি ন্যাপকিন এমনকি বাচ্চাদের পেন খাতা তুলে দেওয়া হয় ।  হাজী কুতুবুদ্দিন সাহেব নিজে সারা জীবন দ্বীনের খিদমতের সাথে মানুষের সেবায় লাগিয়ে দিলেন।  তিনি বলেন -‘গোটা বিশ্বটা একটা পরিবার এই পরিবারে একজন বিপদে পড়লে আর একজন কে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে হবে ‘।হাজী সাহেব আরো বলেন -‘আমাদের অভাব আছে কিন্তূ উপরওয়ালার  খাজানার কোনো অভাব নেই, আমাদের কে মহান প্রভূর শারণাপন্ন হয়ে কাজ করতে হবে।   ত্রাণের ব্যাপারে বলতে গিয়ে বর্ধমানের বিখ্যাত স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা বর্ধমান গ্রীন হান্টার এর সম্পাদক রাকেশ খান ও তাদের টিম কে ভূয়সী প্রশংসা করেন। এছাড়া সংহতি যুব মিশনের প্রধান রাহুল আজম এবং দক্ষিণ দামোদর প্রেস ক্লাব যে ভাবে ত্রানে সহযোগিতা করেছে তার জন্য তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *