‘আনন্দমঠ’ আশ্রমে দোল উৎসবে মেতে উঠল গণপুর গ্রামবাসীরা,

জ্যোতি প্রকাশ মুখার্জ্জী,

       রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের সঙ্গে সঙ্গে সাধক শ্রী শ্রী সীতারামদাস ওঙ্কারনাথ ঠাকুর প্রতিষ্ঠিত 'আনন্দমঠ' আশ্রমে রঙের উৎসব  দোলের আনন্দে মেতে উঠল পশ্চিম মঙ্গলকোটের গণপুর গ্রামের বাসিন্দারা।  আট থেকে আশি - কচিকাচা থেকে শুরু করে বৃদ্ধ-বৃদ্ধারা, গৃহবধূ থেকে বাড়ির মেয়েরা - সবাই এই আনন্দোৎসবে সামিল হয়  এবং সবার মিলিত উপস্থিতিতে দোলের উৎসব সত্যিকারের রঙিন হয়ে ওঠে

    নাম সংকীর্তন প্রচার ও মানুষের সেবা করার লক্ষ্যে হুগলির ডুমুরদহের বাসিন্দা সংস্কৃতের পন্ডিত শ্রী শ্রী সীতারামদাস ওঙ্কারনাথ ঠাকুর গণপুর গ্রামের তাঁর তিন শিষ্য শম্ভুনাথ, তারকনাথ ও সুরথনাথের আহ্বানে সাড়া দিয়ে ১৩৬০ সালের শ্রাবণ মাসে গণপুর গ্রামে আসেন এবং 'আনন্দমঠ' আশ্রম প্রতিষ্ঠা করে চারমাস ধরে যজ্ঞ করেন। মন্দিরে প্রতিষ্ঠিত রাধা-কৃষ্ণের মূর্তিটি নিম কাঠের তৈরি এবং শোনা যায় স্বয়ং ওঙ্কারনাথ সেটি পাকিস্তান থেকে নিয়ে এসে এখানে প্রতিষ্ঠা করেন।

       ১৩৮৫ সালের ভয়াবহ বন্যায় মাটির ঘরটি নষ্ট হয়ে যায়। ১৪০৯ সালে পরিবারের অন্যতম সদস্য হরনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগে বর্তমান মন্দিরটি নির্মিত হয়। নতুন মন্দিরকে কেন্দ্র করে সেই বছর দোলের উৎসবে গ্রামবাসীরি মেতে উঠলেও আর্থিক কারণে পরের বছর আবার দোল উৎসব আবার বন্ধ হয়ে যায়। অবশেষে সমগ্র গ্রামবাসীদের উদ্যোগে গত বছর থেকে আবার দোল উৎসব শুরু হয়। 

   উৎসব উপলক্ষ্যে গত ১৭ ই মার্চ সন্ধ‍্যে থেকে মন্দির চত্বরে শুরু হয়  নাম-সংকীর্তন এবং ১৮ ই মার্চ সারাদিন ব্যাপী সেটি চলে। গ্রামবাসীদের আগমনে মন্দির চত্বর গমগম করে ওঠে। দুপুরে হয় নরনারায়ণ সেবা। পরে গ্রামবাসীরা নগর পরিক্রমায় বের হয়। জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সমস্ত শ্রেণীর মানুষকে নগর পরিক্রমায় পা-মেলাতে দেখা যায়। পরস্পরকে আবিরে রঙিন করে নাচতে নাচতে সকলে আনন্দে মেতে ওঠে। মুহূর্তের মধ্যে সব ভেদাভেদ দূর হয়ে উৎসব সত্যিকারের সার্বজনীন হয়ে ওঠে।

    গ্রামের অন্যতম প্রবীণ ব্যক্তি তথা ওঙ্কারনাথের শিষ্য রামজীবন ভট্টাচার্য্য  বললেন- ঠাকুরের লক্ষ্য ছিল জাতি, ধর্ম নির্বিশেষে সব মানুষের মিলনের মধ্যেই আনন্দ খুঁজে নেওয়া। সেই লক্ষ্যকে সামনে রেখে তিনি এই আশ্রম প্রতিষ্ঠা করেন।  তাই  ঠাকুরের ইচ্ছাকে সম্মান জানিয়ে আর যেন এই মিলন উৎসব বন্ধ না হয়। গ্রামবাসীদের কাছে তার আবেদন ছোট করে হলেও ভবিষ্যতেও এই মিলন উৎসব যেন চালিয়ে যাওয়া হয়। তাহলে সেই মহান মানুষটির ইচ্ছেকে মর্যাদা দেওয়া হবে।

       একই কথা বললেন আশ্রমের বর্তমান সেবাইত কনকনাথ ব্যানার্জ্জী ও রমা ব্যানার্জ্জী। তাদেরও ইচ্ছে প্রতি বছর যেন এই উৎসব হয়। রমা দেবীর বক্তব্য - আমার যা আর্থিক ক্ষমতা তাতে আমার পক্ষে উৎসব করা সম্ভব নয়। তবে যেভাবে গ্রামবাসীরা এগিয়ে এসেছে তাতে আমি সবার কাছে কৃতজ্ঞ। বিশেষ করে তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন নীলকুমার, উদয়, তাপস, নগন, সাহেব, শিউলি, পাপিয়া, অর্ণবী, অনিমেষ প্রমুখের কাছে। মূলত তাদের উদ্যোগেই এই উৎসবটি আয়োজন করা সম্ভব হলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *