সারেঙ্গায় বিবেক চেতনা উৎসবে ‘শিক্ষারত্ন’শিক্ষকদের সমাবেশ

ক্রীড়া সংস্কৃতি

শুভদীপ ঋজু মন্ডল,

জঙ্গলমহলের সারেঙ্গা গ্লোবাল এডুকেশন সেন্টারের সারেঙ্গা বিবেকানন্দ বিদ্যাপীঠে তিনদিনের বিবেক উৎসব আজ শেষ হলো। দশই জানুয়ারি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জয়ন্ত খাটুয়ারহাত দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। ঐদিন সকাল থেকে বিদ্যাপীঠ ছাত্র-ছাত্রীদের বিভিন্ন বিভাগে বসে আঁকো, আবৃতি, বিবেকানন্দ কুইজ, বক্তৃতা প্রতিযোগিতা, সংগীত প্রতিযোগিতা, ব্রতচারী প্রদর্শন ও স্থানীয় শিল্পীদের সঙ্গীতানুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। দ্বিতীয় দিনেও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা যেমন খুশি সাজো ও বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের নাটক পরিবেশিত হয়। তৃতীয় দিন অর্থাৎ ১২ ই জানুয়ারি স্বামীজীর ১৫৭ তম জন্মদিন যথাযোগ্য মর্য়াদায় পালন করা হয়। সকালে ছাত্র-ছাত্রী অভিভাবক অভিভাবিকা বৃন্দ ও এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিদের নিয়ে শোভাযাত্রা সারেঙ্গা বাজার পরিক্রমা করে। দুপুরে বিদ্যালয়ে মাতৃ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এরপর বিকেলে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ, দুস্থ ছাত্র-ছাত্রীদের পুস্তক প্রদান ও স্মরণিকা প্রকাশ করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিবেকানন্দ বিদ্যাপীঠের সভাপতি অঞ্জন মহাপাত্র, প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ২০১৮ সালে রাষ্ট্রপতি পুরস্কার প্রাপ্ত শিক্ষক শ্রী অমিতাভ মিশ্র। এছাড়া সম্মানীয় অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সারেঙ্গা পিটিটিআই এর অধ্যক্ষ সাধন কুমার মহান্তি, শিক্ষারত্ন প্রাপ্ত শিক্ষক সাধন কুমার মন্ডল, শিক্ষারত্ন প্রাপ্ত শিক্ষক পরীক্ষিত কামিল্যা, শাল ডহরা পিকে বিদ্যাপীঠের প্রধান শিক্ষক সুশান্ত খাটুয়া, কুসুমটিকরি হাই স্কুলের পধান শিক্ষক তাপস কুমার মহান্তী প্রমুখ।এই বিদ্যালয় এর প্রধান শিক্ষক জয়ন্ত খাটুয়া বলেন আমরা আমাদের সহকারি শিক্ষক শিক্ষিকা, অভিভাবক অভিভাবিকা দের সহযোগিতায় আজ দশ বছর ধরে বিবেকানন্দ উৎসব পালন করে আসছি। বলতে দ্বিধা নেই আমাদের বিদ্যালয়ের এখন ৩০০ জন ছাত্রছাত্রী যা অন্যান্য বেসরকারি বিদ্যালয়গুলোর থেকে অনেক বেশি। বিদ্যালয় এর উদ্যোগে এলাকার তিরিশ জন দুস্থ ছাত্র-ছাত্রীকে পুস্তক প্রদান করা হয় প্রতিবছর। এ বছরও তার ব্যতিক্রম হয়নি। আগামী দিনেও যাতে এই ধরনের অনুষ্ঠান করতে পারি তার জন্য সকলের সহযোগিতা কামনা করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.